The motor vehicle usage has increased tremendously in Dhaka, and like other metropolitan cities, Dhaka is also facing a pollution problem from emissions of carbon monoxide (CO), hydrocarbons (HC), nitrogen oxides (NOx), and particulate matter (PM). Besides this, about 451 polluting industrial plants such as tanneries, textile mills, oil refineries, distilleries, fertilizers, paint manufacture, pulp and paper factory etc. discharge highly toxic effluent directly into the river in Dhaka. In a thickly populated area like Hazaribagh, there are about 160 tanneries discharging 28 to 35 liters of waste effluent for each kilogram of hide processed which contains toxic heavy metals like chromium, arsenic, zinc etc. These run through open drains and fill the whole area with a putrid smell. About 1.3 million people in Dhaka depend on 6 x10 metric ton of wood and other non-conventional fuel in each year, which causes thick smoke from their cooking stoves. The purpose of this paper is to briefly survey the air pollution conditions in Dhaka city.

Read more: Public Health Concern ON Urban Air Pollution

ঘূর্ণিঝড় কোমেন দুর্বল হয়ে পড়েছে। তবে লণ্ডভণ্ড করে গেছে কক্সবাজারের টেকনাফ, সেন্টমার্টিন, সোনাদিয়া ও শাহপরীর দ্বীপ। এ ছাড়া চট্টগ্রাম, বান্দরবান, নোয়াখালী, হাতিয়া, সন্দ্বীপ, লক্ষ্মীপুর, ভোলাসহ উপকূলীয় জেলাগুলোতেও ঘূর্ণিঝড়ে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। এ পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন স্থানে আট নিহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। ঘূর্ণিদুর্গত সেন্টমার্টিন ও শাহপরীর দ্বীপে খাদ্য সঙ্কট দেখা দিয়েছে। কক্সবাজার, চট্টগ্রামের নিন্মাঞ্চল, নোয়াখালী, লক্ষ্মীপুর ও ভোলায় বন্যা পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে। এসব এলাকার নিন্মাঞ্চল ও বিচ্ছিন্ন চরে লাখ লাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়ে। খুলনা ও সতক্ষীরায় প্রবল বর্ষণে ও জলোচ্ছ্বাসে ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বান্দরবানে গাছ চাপা পড়ে একজন নিহত হয়েছে।

Read more: কোমেনে লণ্ডভণ্ড সেন্টমার্টিন ও শাহপরীর দ্বীপে খাদ্যসঙ্কট , নিহত ৮

বঙ্গোপসাগরে সৃষ্ট ঘূর্ণিঝড় ‘কোমেন’-এর প্রভাবে ঝোড়ো বাতাসে দেশের উপকূলীয় এলাকায় গাছ চাপা পড়ে নিহত হয়েছেন তিনজন। বিধ্বস্ত হয়েছে বহু কাঁচা ঘরবাড়ি, উপড়ে পড়েছে গাছপালা, বিদ্যুতের খুঁটি। জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে কক্সবাজারের উপকূলীয় এলাকা টেকনাফ ও চকরিয়ার কয়েক শ গ্রাম। 

গতকাল বৃহস্পতিবার রাত নয়টার দিকে ঘূর্ণিঝড়টি দুর্বল হয়ে সন্দ্বীপের পাশ দিয়ে চট্টগ্রাম উপকূল অতিক্রম করার কথা জানিয়েছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। ঝড়ের কারণে সাগর উত্তাল রয়েছে। ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৫৪ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের গতিবেগ ছিল ৬৮ কিলোমিটার; যা দমকা ও ঝোড়ো হাওয়ার বেগে ৭০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছিল। চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরকে ৭ নম্বর বিপৎসংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

Read more: দুর্বল কোমেনের রাতে সন্দ্বীপ উপকূল অতিক্রম নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত নিহত ৩

ঘূর্ণিঝড় কোমেনের আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত এবং ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে সৃষ্ট বন্যায় আশ্রয়হীন মানুষের পাশে দাঁড়াতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া।

শুক্রবার দলের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক ও মুখপাত্র ড. আসাদুজ্জামান রিপনের স্বাক্ষরে পাঠানো এক বিবৃতিতে এই আহ্বান জানান বিএনপির নেত্রী।

Read more: আশ্রয়হীন মানুষের পাশে দাঁড়াতে সরকারের প্রতি আহ্বান : বেগম খালেদা জিয়া

প্রবল বর্ষণে কক্সবাজারে পাহাড় ধস, পানিতে ভেসে গিয়ে ঝড়ো হাওয়ার কবলে পড়ে ১২ জন নিহত হয়েছেন ছাড়া নিখোঁজ রয়েছেন ১৫ জন রাঙ্গামাটির কাউখালীতে জন নিহত জন আহত হয়েছেন চট্টগ্রামের লোহাগাড়ায়ও পানিতে ডুবে একজনের মৃত্যু হয়েছে দেশের অন্যান্য স্থানেও প্রবল বর্ষণ সীমান্তের ওপার থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে বন্যা জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে এতে লাখ লাখ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন কৃষি মৎস্য সম্পদের ক্ষতি হয়েছে কোটি কোটি টাকার

Read more: প্রবল বর্ষণ ও পাহাড়ধস : কক্সবাজারে ১২ জনসহ নিহত ১৪ জন